জীবন জীবিকার সন্ধানে রাজধানীর সাধারণ মানুষ কাছে ” লকডাউন ” যেন বিষ ফোঁড়া !

জীবন জীবিকার সন্ধানে রাজধানীর সাধারণ মানুষ কাছে ” লকডাউন ” যেন বিষ ফোঁড়া !

 প্রিয়াংকা ইসলাম:
কথায় বলে প্রয়োজন আইন মানে না ! , পেটে খিদে থাকলে খাদ্যের সন্ধানে ঘরের বাহিরে বের হতেই হচ্ছে । জীবন জীবিকার সন্ধানে রাজধানীর সাধারণ নিম্নবিত্ত মানুষ কাছে ” লকডাউন” যেন বিষ ফোঁড়া !
দেশে চলছে সাত দিনের লকডাউন। করোনা সংক্রমণ রোধে এ লকডাউন ডাকা হলেও প্রথম দিনে রাজধানীতে দেখা যায়নি এর তেমন কোনো প্রভাব। রাজধানীর সাধারণ নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষ কাছে ” লকডাউন” এর মাঝেও ছুটে চলেছেন কাজের সন্ধানে ।
ফলে কাগজে-কলমে থেকে যাচ্ছে লকডাউন। জনসাধারণ মাস্ক পরেই বেরিয়ে পড়ছেন সড়কে। লকডাউনের প্রথম দিনে সড়কগুলো দেখলে মনে হবে রাজধানীবাসী যেন কোনো এক ছুটির দিন পার করছেন।
সোমবার (৫ এপ্রিল) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাজধানীর মিরপুর এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়। লকডাউন উপেক্ষা করে সাধারণ মানুষ নিজ নিজ প্রয়োজনে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়ছেন সড়কে। সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ ছাড়াই ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে নানা বয়সের নারী-পুরুষ ও বৃদ্ধদের।
মিরপুর রূপনগর এলাকার বাসিন্দা দিনমজুর শাকিল আহমেদ । লকডাউনে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায় তাকে। তিনি বলেন, লকডাউনে ঘরে বসে থাকলে পরিবার নিয়ে কী খাব। কাজের সন্ধানে ঘর থেকে বের হয়েছি। আমাদের মতো দিন আনা, দিন খাওয়া মানুষদের লকডাউনে পড়তে হয় মহাবিপদে। কর্ম আর খাবারের সন্ধানে ঘর থেকে বের হয়েছি। মিরপুর-২ নম্বর এলাকার বাসিন্দা রিক্সা চালক আমিরুল ইসলাম । লকডাউনে কেন বাইরে বের হয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাজার করতে বাইরে বের হয়েছি। বাসায় তরিতরকারি বলতে কিছুই নেই।রিক্সা নিয়ে বের হইছি যদি কিছু যাত্রী পাই তাইলে চলতে পারবো কোন মতে । আমাদের মতো নিম্নআয়ের মানুষদের লকডাউন মেনে চলা খুব কঠিন। ঘরে শুয়ে বসে দিন পার করাও কঠিন।
পরিবার-পরিজন নিয়ে খেয়ে পরে বেঁচে থাকতে তো হবে। মিরপুর পুরবী সিনেমা হলের সামনে চা বিক্রেতা ফাতেমা সরকার বলেন, পেটের দায়ে ঘর থেকে বের হয়েছি। সকাল থেকে এখন পর্যন্ত কেউ চাবি ঠিক করাতে আসেনি। লকডাউনে মানুষজন ঘর থেকে বেরোচ্ছে কম। আমি গরিব মানুষ, দিন আনি দিন খাই। কাজ না করলে পরিবার নিয়ে না খেয়ে দিন পার করতে হবে। ঘরে খিদের জ্বালা, রাস্তায় করোনার জ্বালা। কোথায় যাবো কী করবো এ লকডাউনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.